জীবনধারা পাল্টে দেয়ার মত তিনটি প্রশ্ন

Print
Category: অনুবাদ গল্প
Published Date Written by অনুবাদ: কাজী শফিকুল আযম

জীবনধারা পাল্টে দেয়ার মত তিনটি প্রশ্ন

অনুবাদ: কাজী শফিকুল আযম


 

এক যুবক বিদেশে পড়াশুনা করতে গিয়েছিল। কিছুদিন পর সে বাড়ীতে ফিরে এসে বাবাকে বললো,

: আমার তিনটি প্রশ্ন আছে যার জবাব সাধারণ কোন মানুষ দিতে পারবে না। তুমি একজন ধর্মীয় পন্ডিত ব্যক্তির কাছে আমাকে নিয়ে চল যে আমার ৩টি প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবে।

তার বাবা অনেক খোজাখুজি করে একজন মুসলিম বিজ্ঞলোকের কাছে তার ছেলেকে নিয়ে গেল।

যুবকটি বললো,

: আপনি কে? আপনি কি আমার প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন?

বিজ্ঞ লোকটি বললেন,

: আমি এক আল্লাহর দাস। ইন-শা-আল্লাহ্ আমি তোমার প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবো।

যুবকটি বললো,

: আপনি কি নিশ্চিত? অনেক অধ্যাপক, জ্ঞানীলোক আমার এই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেনি।

বিজ্ঞ লোকটি বললো,

: আল্লাহর সহায়তায় আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টা করবো।

যুবকটি বললো,

: আমার তিনটি প্রশ্ন আছে।

প্রথমটিঃ আল্লাহর কি অস্তিত্ব আছে? যদি থাকে তবে তাঁর আকার কী?

দ্বিতীয়টিঃ তাকদির বা ভাগ্য কী?

তৃতীয়টিঃ ইবলিসকে যদি আগুন থেকে তৈরী করা হয়, তবে শেষ বিচারে তাকে কেন জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে? আগুনের তৈরী ইবলিসকে আগুনের তৈরী জাহান্নামে ফেললে অবশ্যই তার কোন ক্ষতি হবে না। আল্লাহ কি আগে একথা চিন্তা করেননি?

এই প্রশ্নের পরপরই হঠাৎ করে বিজ্ঞ লোকটি যুবকটির গালে কষে এক চড় বসিয়ে দিলেন।

যুবকটি ব্যাথা পেয়ে বললো,

: আপনি আমার প্রতি রেগে যাচ্ছেন কেন?

বিজ্ঞ লোকটি বললেন,

: আমি রাগ করিনি। চড় হল তোমার প্রশ্ন তিনটির উত্তর।

যুবকটি হতভম্ব হয়ে বললো,

: আমি আসলেই কিছু বুঝতে পারছি না।

বিজ্ঞ লোকটি জানতে চাইলেন,

: আমি চড় মারলে তোমার কেমন অনুভূতি হয়েছিল?

যুবকটি বললো,

: অবশ্যই আমি ব্যাথা পেয়েছি।

বিজ্ঞ লোকটি বললেন,

: তুমি কি বিশ্বাস কর যে ব্যথার কোন অস্তিত্ব আছে?

যুবক বললো,

: হ্যাঁ, অবশ্যই।

বিজ্ঞ লোক,

: তাহলে আমাকে ব্যাথার আকার দেখাও।

যুবক,

: ব্যথার আকার দেখানো তো সম্ভব না।

বিজ্ঞ লোক,

: এটাই তোমার প্রথম প্রশ্নের উত্তর। আমরা সবাই আল্লাহর আকার না দেখতে পেরেই আল্লাহর অস্তিত্ব অনুভব করি। এবার আসা যাক দ্বিতীয় প‌্রশ্নে। গত রাতে কি তুমি চিন্তা করেছিলে যে আমি তোমাকে চড় দিব?

যুবক,

: না, আমি তো জানতামই না আপনার সাথে আমার দেখা হবে।

বিজ্ঞ লোক,

: আমার সাথে দেখা হওয়ার পরে তুমি কি কখনও চিন্তা করেছো যে, আমি তোমাকে আজ চড় দিব?

যুবক,

: না।

বিজ্ঞ লোক,

: এটাই ভাগ্য বা তাকদীর, তোমার দ্বিতীয় প্রশ্নের উত্তর। এবার আসা যাক তৃতীয় প্রশ্নে। আমার হাত-যা দিয়ে আমি তোমাকে চড় দিয়েছি-তা কিসের তৈরী বলতো?

যুবক,

: মাংস থেকে তৈরী হাত।

বিজ্ঞ লোক,

: তোমার মুখ কিসের তৈরী?

যুবক,

: মাংস।

বিজ্ঞ লোক,

: আমি চড় দেয়াতে তোমার কেমন লেগেছিল?

যুবক,

: আমি ব্যাথা পেয়েছিলাম।

বিজ্ঞ লোক,

: এটি তোমার তৃতীয় প্রশ্নের উত্তর। যদিও ইবলিস আর জাহান্নাম উভয়ই আগুনের তৈরী, তবুও আল্লাহর ইচ্ছায় জাহান্নাম শয়তানের জন্য খুবই যন্ত্রণাদায়ক জায়গা হবে।

যুবকটি তার তিনটি প্রশ্নের উত্তরে সন্তুষ্ট হয়ে বাড়ী ফিরে গেল। এবং আমাদের জন্য এমন কিছু শিক্ষা রেখে গেল যা আমাদের পুরো জীবনকে পাল্টে দিয়ে মহাসত্যের পথ দেখাতে পারে।

(সমাপ্ত)


যোগাযোগ: This e-mail address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

লেখকের আরো লেখা পড়তে অনুসরণ করুন: -কাজী শফিকুল আযম

.
By Joomla 1.6 Templates and Simple WP Themes