ভালবাসার অবমাননা হজম করা মৃত্যুর চেয়ে অনেক ভয়াবহ

Print
Category: সম্পাদকীয়
Published Date Written by সম্পাদক

সাম্প্রতিক কালে মুসলিম বিশ্বের অন্যতম একটি দেশ- বাংলাদেশে যাকিছু ঘটছে, তা নিয়ে সারা বিশ্বের মুসলমানদের মধ্যে গভীর উদ্বেগ দেখা গিয়েছে। যদিও যুদ্ধ-পীড়িত দেশগুলোর তুলনায় নগণ্য, কিন্তু ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের তুলনা করতে গেলে নিঃসন্দেহে উদ্বেগের বিষয়। বিশ্বখ্যাত ইসলাম-বিদ্বেষী মতবাদগুলো এ দেশে একযোগে ইসলামের উপর আঘাত হেনেছে বর্তমান সময়ে।

যে কোন মতবাদের জন্য রাষ্ট্রশক্তি অর্জনই সর্বোচ্চ অর্জন। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে ইসলাম-বিদ্বেষী মতবাদগুলো পরস্পরের সাথে সমঝোতা করে মাঠে নেমেছে। তাই অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় হঠাৎ করেই হাজারগুণ বেশী দুঃসাহস দেখিয়ে ফেলেছে। মতবাদ-বিশেষজ্ঞদের মতেও যা মোটেই স্বাভাবিক প্রক্রিয়া নয়।

হাঁ, অন্তরালের কার্যক্রমের উপর ভর করেই হয়ত তারা এতটা স্পর্ধা দেখিয়ে ফেলেছে। যাতে সর্বশক্তিমান আল্লাহ্ ও তাঁর প্রিয় রাসূল মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু 'আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সর্বকালের সবচেয়ে নিকৃষ্ট ও জঘন্য শব্দাবলীর দ্বারা সম্মানহানীর চেষ্টা করা হয়েছে। যদিও সর্বশক্তিমান আল্লাহ্ তাঁর সৃষ্ট সমগ্র মানব জাতিই নয় শুধুমাত্র; সকল কিছু থেকেই অমুখাপেক্ষি এবং তাঁর রাসূলকে (সাল্লাল্লাহু 'আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যথাযোগ্য মর্যাদা দিয়ে রেখেছেন যুগ যুগ ধরে অনাগত অনন্ত পর্যন্ত; তথাপি মুমিনগণ যারপর নাই আহত হয়েছে।

নাস্তিক-মুরতাদগণ নিজেদের মধ্যে যেসব জঘন্য অশ্লীলতার চর্চা করে থাকে, তারা কিছু সময়ের জন্য রাষ্ট্রশক্তির সহযোগিতা পেয়ে ভেবে বসেছিল যে, এটাকেই হয়ত এখন একটি দেশের রাষ্ট্রীয় চর্চায় রূপান্তরিত করে ফেলা সম্ভব হবে। তারা বিভ্রান্ত হয়েছে অথবা আল্লাহই তাদেরকে বিভ্রান্ত করে দিয়েছেন এ দেশের কোটি কোটি ধর্মপ্রাণ মুসলমানের হৃদয়ের ভালবাসার গতিপথ সম্পর্কে।

হয়ত তারা এ বিষয়টিতেও বিভ্রান্ত এখনো যে, তারা সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য অকাতরে জীবন দেয়; অবশ্যই মৃত্যুর আকাংখায় নয়। পক্ষান্তরে ইসলাম প্রতিজন মুসলমানের জন্য আল্লাহর পথে শাহাদাতের মৃত্যুর আকাংখাকে অনিবার্য করে দিয়েছে। ইসলামে মৃত্যুর ধারনা একটি স্থানান্তরের ঘটনা মাত্র। ভালবাসার মানুষের জন্য আত্মহত্যার প্রবণতাও দেশে দেশে প্রচুর। মুসলিমদের নিকট তাদের ভালবাসার সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছেন মহান আল্লাহ্ তা'আলা, তারপর তাঁর রাসূল মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু 'আলাইহি ওয়াসাল্লাম। তাই এ ভালবাসার অবমাননা হজম করা তাদের জন্য মৃত্যুর চেয়ে অনেক ভয়াবহ। যার উদাহরণে পৃথিবীর ইতিহাস পূর্ণ হয়ে আছে।

সাম্প্রতিক কালের ঘটনাবলীতে ইসলামের বিরুদ্ধে নাস্তিক-মুরতাদদের পর্যায়ক্রমিক ষড়যন্ত্র এবং সেসবকে কেন্দ্র করে যেসব লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে, তা মোটেই কাম্য নয়। এর দ্বারা ইসলামের কোন ক্ষতি করা সম্ভব হবে না কখনোই, শুধু যারা হয়ত পৃথিবীতে আরো বহুদিন বিচরণ করতো, তাদেরকে দ্রুত তাড়িয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে এই পৃথিবী থেকে। কিন্তু তারা এ নিয়ে মোটেই চিন্তিত নয়; কারণ তাদের দৃঢ় বিশ্বাস যে, নির্ধারিত সময়ের এক সেকেণ্ড আগেও পৃথিবীর কোন শক্তি তাদেরকে পৃথিবী থেকে বিতাড়িত করতে পারবে না। আর সে নির্ধারিত সময় তার প্রতিপালকের পক্ষ হতে সুনির্দিষ্ট।

আমরা শান্তি চাই; হিংস্রতা চাইনা, ইনসাফ চাই; যুলুম চাই না, অগ্রগতি চাই সঠিক ও সুষ্ঠু পন্থায়; ভ্রান্ত পথে নয়।

মহান আল্লাহ্ সুন্দর, তিনি পছন্দ করেন সকল সুন্দরকে। তাই আমরা ভালবাসতে চাই মহান আল্লাহর জন্য, ঘৃণা করতেও চাই মহান আল্লাহরই জন্য। কিন্তু আমাদেরকে (মুসলিম জাতি) দায়িত্ব দেয়া হয়েছে অসুন্দরকে সুন্দরে রূপান্তরিত করার সাধনা চালিয়ে যেতে। আমরা তা শুরু করি মিষ্টি হাসির দ্বারা। আমরা আমাদের সবটুকু শক্তি-সামর্থ্য লাগিয়ে দেই এই সাধনায়। প্রয়োজন হলে আমরা আমাদের জীবনকে উৎসর্গ করতেও পিছপা হই না এই সুন্দরের সাধনায়। সুতরাং শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পর্যাক্রমিক যে ধারাবাহিকতা, সুন্দর ও সহজ থেকে পর্যায়ক্রমে কঠোর হবার বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতি যে আদর্শে সাধনা করা হয়; তাকে জঙ্গী আখ্যা দেয়া একটি সাময়িক গালি হতে পারে, স্থায়ী কোন সিদ্ধান্ত কখনোই নয়। পৃথিবীর ইতিহাস বার বার তা প্রমাণ করেছে।

পরিশেষে, দীর্ঘদিন পর নির্মাণ তার স্বমহিমায় বর্তমান। নির্মাণ পড়ুন, বন্ধুদের পড়ানোর ব্যবস্থা করুন, আপনার গবেষণাধর্মী ভালো লেখাগুলো পাঠান। এভাবেই পড়ে, পড়িয়ে, লিখে ও নির্মাণকে ভালবেসে আপনিও হয়ে উঠুন একজন সময়নির্মাতা।


এ বিভাগের আরো লেখা পড়তে অনুসরণ করুন: সম্পাদকীয়

.
By Joomla 1.6 Templates and Simple WP Themes